Uncategorized

করোনার হ য ব র ল

Grilled Radicchio Salad

চীন, আমেরিকা, ইতালি, বাংলাদেশ!

পৃথিবীর পাওয়ার হাব চীন-
এক পুচকে ভাইরাসে বিপর্যস্ত!
যাদের “চুলের” ও ক্ষতি করার আগে -পুরো বিশ্বকে চিন্তা করতে হত!

বলা হয় পৃথিবীর এমন কোন জায়গা নেই যেখানে বসে আপনি বলতে পারবেন না – এখানে চায়নার কিছু নাই!

বাসায় থাকলে হয়ত এটলিস্ট আপনার টয়লেটের কমোড!
রেস্টুরেন্টের এটলিস্ট চামচটা!
বা আপনার শার্টের বোতামটা!

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চীনের বিপক্ষে
“বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা” দিয়ে ১ মাস ও ঠিকতে পারে নি!

– অথচ সামান্য পুচকে সর্দিকাশি কি করছে!

করোনা ভাইরাসের ভয়াবহ সংক্রমন রোধে USA তার সবচেয়ে প্রিয় মিত্র European Union এর ২৬ টি দেশ থেকে আগামী এক মাসের জন্য সব ধরনের ভ্রমন ব্যবস্থা স্থগিত করেছে l
অচিরেই হয়ত সারা বিশ্বের সাথে আকাশ এবং সামুদ্রিক যোগাযোগ সাময়িক ভাবে বিচ্ছিন্ন করে দিবে তারা !

মানে হল আমেরিকা নিজেই নিজেকে কোয়ারেন্টাইনে নিয়ে যাচ্ছে!
“স্বেচ্ছা নির্বাসন” ও আমরা বলতে পারি!

যেই আমেরিকার দিকে পুরা বিশ্ব তাকিয়ে থাকে! তারাই আজ ” অনিরাপদ” বোধ করছে! – সামান্য এই পুচকে সর্দি-জ্বর কে!

ইতালি স্বয়ং ৬ কোটি জনসংখ্যার এক এলাকাকে কোয়ারেন্টাইনে এ নিয়ে গেছে! – ৬ কোটি লোক গৃহবন্দী!

এক পুচকে সর্দি জ্বর!

সুরা সিজদাহ, আয়াত ২৬ এ আল্লাহ বলছেন-

“এতে কি তাদের চোখ খোলেনি যে, আমি তাদের পূর্বে অনেক (জাতি ও) সম্প্রদায়কে ধ্বংস করেছি, যাদের ধ্বংসপ্রাপ্ত বাড়ি-ঘরে এরা যাতায়াত করে? অবশ্যই এতে (শিক্ষণীয় বিষয় ও) নিদর্শনাবলী রয়েছে। তারা কি শোনে না?”(৩২:২৬)

বাংলাদেশ এ যদি করোনা ভাইরাল হয়!- আমি একটা কথা বলতে পারি-

“তাকিয়ে তাকিয়ে দেখা ছাড়া আমরা আর কিছুই করতে পারবো না!”
আসলেই পারবো না-

ঘনবসতির এ কোলাহলের দেশে এ ১৪ দিনের স্বেচ্ছা কোয়ান্টারাইন করার ক্ষমতাও আমাদের অনেকের নেই!-

“ভালবেসে মিটল না আশ-
কুলাল না এ জীবনে
হায়,জীবন এত ছোট কেনে?
এ ভুবনে?”

মধ্য রাত, আকাশে চাঁদ, নিস্তব্ধ চারপাশ,
ইমদাদুল হক মিলন প্রবাস জীবনে জার্মানি থাকাকালে তারাশংকরের এ লাইন পড়ে অঝোরে কেঁদেছিলেন.. হঠাৎ মনে হয়েছিল ছোট্ট এ জীবন আমাদের…
একদম ছোট্ট। কিসের এত মায়া!

নিস্তব্ধ সে কান্না..
“জীবন এত ছোট ক্যানে! –

বিশ্ববিধাতার কার্যকরণের সুত্র খুঁজে পাওয়া যায় না। ভবিতব্যের উপর মানুষের ক্ষমতাও সীমিত …!

তারপর ও আমরা ছুটছি.. যুদ্ব করছি,জীবনের জন্য, জন্ম,বেড়ে উঠা, পড়াশোনা, চাকরি বা ব্যবসা, বিয়ে, বাচ্চা,তাদের পড়াশোনা,…
চলমান এ জীবনে…. তারপর মৃত্যু!

Just keep Going,Going and Going!

করোনা’র এ বিভীষিকা একদিন শেষ হবে, আবার আমরা ফিরে তাকাবো, সব স্বাভাবিক হবে, বলে উঠবো-

THE SHOW MUST GO ON..

এটাই মনে হয় এ পৃথিবীতে মানব জাতির বিলুপ্ত না হবার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় স্পিরিট।