Uncategorized

লেখা চোর …!

Grilled Radicchio Salad

Plagiarism এর সংজ্ঞায় Oxford dictionary বলছে: –
The practice of taking someone else’s work or ideas and passing them off as one’s own.

আর Wikipedia এর মতে “ –
Plagiarism is the “wrongful appropriation” and “stealing and publication” of another author’s “language, thoughts, ideas, or expressions” and the representation of them as one’s own original work.

যদি কোন একটি লেখায় অন্য লেখা থেকে ছয়টি (০৬) শব্দ পরপর মিলে যায়,বা যদি ৩০টি শব্দের সেট হতে ৭ থেকে ১১ টি শব্দ মিলে যায়,তাহলে প্রথম লেখাটি লেখাচুরি বা প্লাজিয়ারিজমের দোষে দুষ্ট। তবে শুধুমাত্র সরাসরি টুকলিফাই না-করেও যদি কেউ অন্যের গবেষণা ফল বা আইডিয়া এদিক-সেদিক খানিকটা ঘুরিয়ে ফিরিয়ে লিখে নিজের বলে চালিয়ে দেয় সেটাও প্লাজিয়ারিজম।
(ইন্টারনেটের বিভিন্ন সংজ্ঞা হতে যা বোঝলাম)।

ছাত্রজীবনে Ashim Dutta স্যার এক টিউটোরিয়ালে ১০০০ শব্দের এ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে বলেছিলেন-”কপি করলে আমার কাছে ধরার ব্যবস্থা আছে –ফাঁকি দিতে পারবা না! – এ চিন্তায় রাতভর ঘুম হারাম!”
মনে হয় Dr. Faustus এর উপর ছিল । প্যারাফ্রেজ করে করে ,আর শব্দ বদলাতে বদলাতেই ঘুম শেষ!

আহারে! তখন যদি একটু সামিয়া ম্যাডামের মত বলতে পারতাম !

নামকরা লেখা চুরির ঘটনা ও অনেক –ইন্টারনেট এ হাজারো আছে— বেশ মজাদার !-
২০১৪ সালের মাঝামাঝি লেখাচুরির ঘটনা উম্মোচিত হয় জাপানে। সেখানে হার্ভার্ড থেকে গবেষণা করা হারুকো ওবোকাতা নামের এক বিজ্ঞানী স্টেমসেল নিয়ে সাড়া জাগানো দুটো আর্টিকেল প্রকাশ করে সবথেকে বিখ্যাত একাডেমিক জার্নাল Nature –যা- তাকে রাতারাতি সেলিব্রিটি বিজ্ঞানীর মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করে। পরে দেখা যায় যে,তার আর্টিক্যালগুলো লেখাচুরিসহ আরও অন্যান্য একাডেমিক অসততার দোষে দুষ্ট।
যা হোক – লেখাচুরি ইচ্ছাকৃত এবং অনিচ্ছাকৃত- দুইই হতে পারে তবে একে একাডেমিক অসততা হিসেবেই দেখা হয় ।

একে জাস্টিফাই করার বা আমি বিদেশ ছিলাম, বা আমার কো – অথার জানে – বলার অবকাশ নেই ।
তবে এটা বলে কিছুটা হলেও মানসিক তৃপ্তি লেখা চোর পেতে পারেন –
‘God created humankind in His image, in the image of God He created them.”- তাই আমরা ও তাঁকে অনুসরণ করি! – অন্য লিখার ইমেজ ,আমাদের লিখায় আমেজ বাড়ালে মন্দ কি!

আনাতোলি ফ্রান্স আরও সাহসী হয়ে বলেছেন :-
“When a thing has been said and said well, have no scruple. Take it and copy it.”
সেটা মিশেল ফুকো হোক বা এডওর্য়াড সাঈদ ! —আমি নিশ্চিত উনারা এ বিশ্বাসেই বলীয়ান !………..

তবে মনে রাখতেই হবে –
”চোরের মায়ের বড় গলা – লেখা চোর হিসেবে আপনার গলা ও বড় হতে হবে” ।

অন্যথায় সফটওয়্যারে বিনাশ সুনিশ্চিত !— ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *